গিম্প যে দিকগুলোতে ফটোশপ থেকে এগিয়ে

প্রথমেই ক্লিয়ার করে দেয়া ভালো, ফটোশপ অবশ্যই গিম্প থেকে বেশি এডভান্সড ও ফিচার রিচ এটা আমি কোনভাবেই অস্বীকার করছি না, বা এমন কিছু প্রমাণ করা আমার উদ্দেশ্য নয়। কিন্তু একজন বেসিক ইউজার হিসেবে এমন কিছু ব্যাপার রয়েছে যা ফটোশপের পরিবর্তে গিম্প বেছে নেওয়ার কারণ হতে পারে। এই লেখাটি একপাক্ষিক, শুধু গিম্পের ভালোগুলোই আলোচনা করা হয়েছে।

আরেকটি কথা মেনশন করে রাখি, ফটোশপের রিসেন্ট রিলিজগুলো নিয়ে আমার অভিজ্ঞতা না থাকার মত। কিছুদিন আগে একটি উইন্ডোজ পিসিতে ফটোশপ কয়েক মিনিট ব্যবহার করেছিলাম, এর বাইরে গত দুতিন বছরে ফটোশপ সম্ভবত চালানো হয়নি। তাই ফটোশপ বিষয়ে কোন কথায় ভুল থাকলে কমেন্টে জানিয়ে দিলে ভালো হয়।

প্রথম কারণটি অবশ্যই অনুমান করতে পারছেন, দাম। ফটোশপ শুধু একটি পেইড সফটওয়্যার তা-ই নয়, এর দাম বেশ স্বচ্ছল একজন মানুষকেও কয়েকবার ভাবতে বাধ্য করার মত। ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য সর্বনিম্ন মাসে ১০ ডলার, বছরে প্রায় দশ হাজার টাকা বেশ বড় একটা অঙ্ক, অন্য প্ল্যানগুলো আরো দামি। হ্যা, বেশিরভাগ মানুষ পাইরেসি করে চালিয়ে থাকে, তবে সেটা অন্য বিষয়।

আর গিম্প, অবশ্যই সম্পূর্ণ ফ্রি। এটা বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন, মডিফিকেশন করতে পারবেন, বিতরণ করতে পারবেন, এমনকি বিক্রিও করতে পারবেন অল্প কিছু শর্তের অধীনে। এটা GPL লাইসেন্সের অধীনে প্রকাশিত একটি ফ্রি ও ওপেন সোর্স সফটওয়্যার।

ফটোশপের দাম কিন্তু শুধু এর নিজের দামেই সীমাবদ্ধ না। এটা একটি হেভি সফটওয়্যার, ভালো কনফিগারেশনের পিসি না থাকলে আপনি ব্যবহার করতে পারবেন না এমনকি মোটামুটি ভালো কনফিগারেশনের পিসিতেও এটা কাজের সময় ল্যাগ করতে পারে। আর ভালো কনফিগারেশনের পিসি অর্থ হলো আরো বাড়তি খরচ।

গিম্প ব্যবহার করতে জাস্ট একটা পুরনো দিনের পিসি হলেই হবে। i3 3rd Gen, 2GB Ram পিসিতে এটা বেশ স্মূথলি চালিয়েছি, আরো লো কনফিগারেশন পিসিতেও চালাতে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। স্টার্টআপে ৫০ এম্বি ও আমার সাধারণ কাজের সময় মাত্র ২০০-২৫০ এম্বির মত Ram কনজ্যুম করে দেখেছি।

তবে এখানেই শেষ নয়, ফটোশপ চালাতে হলে আপনার উইন্ডোজ বা ম্যাক পিসি লাগবে (অ্যান্ড্রয়েড ভার্সনটি মোটেও পিসি ভার্সনের সাথে মিলে না), এবং এর জন্যও বাড়তি খরচ প্রয়োজন। এটা অবশ্য খরচের বিষয় না শুধু, পছন্দেরও বিষয়। একজন লিনাক্সপ্রেমী হিসেবে আমি উইন্ডোজ ব্যবহার করতে লিনাক্সের মত স্বচ্ছন্দ্যবোধ করি না, যদি তা ফ্রিতেও পাওয়া যায়, তবুও না। তো, গিম্প লিনাক্সে সমর্থিত, পাশাপাশি উইন্ডোজ, ম্যাক এবং কিছু ওএস (যেমন বিএসডি) সমর্থন আছে।

আগে আমি যখন ফটোশপ চালাতাম, তখন একদম বেসিক কাজগুলো, যেমন কোনকিছু চতুর্ভুজ দিয়ে হাইলাইট বা ছবি রিসাইজ করা এসবের জন্য পেইন্ট ব্যবহার করতাম। কেননা, ফটোশপ বেশি কমপ্লেক্স মনে হত এধরণের কাজের জন্য এবং এটি চালু হতেও একটা হিউজ সময় নিত। তবে গিম্প বেশ দ্রুত চালু হয়, এডভান্সড বা সিম্পল সবধরণের কাজেরই উপযুক্ত মনে হয়।

গিম্প ব্যবহার করা সহজ, অনভিজ্ঞ একজন সম্ভবত তুলনামূলক সহজেই এখানে মানিয়ে নিতে পারবে। ফটোশপের থেকে এখানে ইন্টারফেস অনেকটা সিমপ্লিফায়েড, কমপ্লেক্স মনে হয় না।

বাংলা লেখা নিয়েও ফটোশপে কিছু সমস্যা আছে, ইউনিকোডে সরাসরি লেখা যায় না। তবে গিম্পে এই সমস্যা নেই, ইউনিকোডে বাংলা খুব সহজেই লেখা যায়। অবশ্য আমি বিজয় চেষ্টা করে দেখিনি বাই দা ওয়ে…

গিম্পের আরেকটি এডভান্টেজ হলো কিছু কিছু টুল ও ফিল্টারে অন ক্যানভাস এডিটিং সুবিধা, যার মধ্যে গ্র্যাডিয়েন্ট টুল বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ক্যানভাসেই গ্র্যাডিয়েন্ট প্রয়োজনমত এডিট ও প্রিভিউ দেখা যায়। অন্য কোন এডিটরে এমনটা পাইনি।

ফটোশপের  একটি টুল গ্রুপের জন্য সম্ভবত একটিই কীবোর্ড শর্টকাট থাকে, কিন্তু গিম্পে প্রতিটি টুলের আলাদা আলাদা শর্টকাট আছে, তাই কীবোর্ডের মাধ্যমে টুল সুইচ করা আরো ইফিশিয়েন্ট।

ফটোশপের ট্রান্সফর্মেশন টুলগুলো নিয়ে আমার ভালোভাবে জানা নেই, তবে বেশ নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি, গিম্প এক্ষেত্রে সেরা। গিম্পে মোট ১০ ধরণের ট্রান্সফর্মেশন টুল আছে। এর একটি হলো Unified Transform Tool যা একাই মুভ, রিসাইজ, রোটেট, শিয়ার, পার্সপেক্টিভ সব করতে পারে। ভিডিওতে টুলগুলো দেখানো হলো।

গিম্পের ব্রাশ টুলগুলোও চমৎকার। ফটোশপের মত এখানেও বাড়তি ব্রাশ যুক্ত করা যায়। ৫ ধরণের ব্রাশজাতীয় টুল আছে এখানে। যাদের মধ্যে আছে পেইন্টব্রাশ, পেনসিল, এয়ারব্রাশ, ইঙ্ক টুল এবং মাইপেইন্ট ব্রাশ। মাইপেইন্ট ড্রইংয়ের জন্য বিশেষায়িত আরেকটি ওপেন সোর্স সফটওয়্যার এবং গিম্পে তাদের ব্রাশগুলো ইন্টিগ্রেট করে দেয়া হয়েছে। এই ব্রাশগুলোর ডায়ানামিক ফিচার রয়েছে এবং ডিজিটাল ড্রইংয়ে গিম্পকে বড় একটা এডভান্টেজ দেয়।

 

আরেকটা ব্যাপার হলো গিম্পের ন্যাটিভ ফাইল ফর্মেট .xcf ফটোশপে ওপেন করা যায় না। কিন্তু ফটোশপের ন্যাটিভ ফর্মেট .psd গিম্পে ওপেন ও সেভ করা যায়, যদিও এখানে লিমিটেশন আছে, টেক্সট লেয়ারগুলো বিটম্যাপে কনভার্ট হয়ে যায়।

সবশেষে বলি, গিম্প ও ফটোশপ দুটো ভিন্ন সফটওয়্যার, দুটোরই কিছু সুবিধা আর কিছু অসুবিধা আছে। তবে, একজন বেসিক ইউজারের সাধারণত যে বিষয়গুলো প্রয়োজন হয়ে থাকে, গিম্পের মাধ্যমে তা সহজেই পূরণ করা যায় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এবং এই বিষয়টা গিম্পকে অসাধারণ করে তোলে।

Loading spinner

One Reply to “গিম্প যে দিকগুলোতে ফটোশপ থেকে এগিয়ে”

  1. MD Imran Mia says: October 12, 2020 at 2:07 pm

    Nice post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

You may use these <abbr title="HyperText Markup Language">html</abbr> tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

*