বর্ণ: অ্যান্ড্রয়েডে বাংলা লেখার জন্য সেরা সফটওয়্যার সম্ভবত এটাই

অ্যান্ড্রয়েডে বাংলা লেখার জন্য বর্তমানে বেশ কিছু সফটওয়্যার জনপ্রিয়- তবে আমার ব্যবহারে সেরা সফটওয়্যার ছিলো বর্ণ। বর্ণের উইন্ডোজ ভার্সনও রয়েছে, তবে আমরা শুধু অ্যান্ড্রয়েড ভার্সনের দিকে ফোকাস রাখছি। এটা তুলনামূলক নতুন একটি সফটওয়্যার। নতুন বলতে আবার একদম নতুন না, প্রায় বছরতিনেক হয়ে যাচ্ছে প্লে স্টোরে প্রথম রিলিজ হওয়ার। এখন পর্যন্ত বর্ণ সম্পূর্ণ ফ্রি এবং এতে কোন বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হয় না। তবে এটা ওপেন সোর্স নয়।

এই লেখাটা অনেক আগে শুরু করেছিলাম। প্রিসাইজলি বললে ২০২১ সালের অক্টোবরে, যখন বর্ণ আরো অনেকটা নবীন ছিলো- কিন্তু শেষ করা হয়নি আর। অবশ্য এই সময়কালে নিয়মিতই বর্ণ ব্যবহার করে আসছি। বর্ণ-ও নিয়মিত আপডেট হয়েছে এর মাঝে। হয়ে উঠেছে আরো পূর্ণাঙ্গ, আরো চমৎকার একটি সফটওয়্যার।

যদি আপনি রিদ্মিক কিবোর্ড ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে বর্ণ ব্যবহার করতে খুব অপরিচিত মনে হবে না। তবে অনেকাংশে বর্ণ বেশি প্রিফারেন্সেস ও ফ্লেক্সিবিলিটি প্রদান করে, যা এই লেখাতে উঠে আসবে। এছাড়া রিদ্মিক আগের থেকে এখন কিছুটা অন্য পথে চলছে, যেমন বর্তমানে এখানে বিজ্ঞাপন এবং থিম ও স্টিকার স্টোর রয়েছে- যা বর্ণ কিবোর্ডে নেই, ফলে এর এক্সপ্রেরিয়েন্স আরো ক্লিন। তবে প্রসঙ্গত, বর্ণ কিবোর্ডে স্টিকার ও GIF সমর্থন নেই- but I don’t really mind it।

বর্ণে সর্বমোট ১১টি লেআউট রয়েছে। ইংরেজি, আরবি, বাংলা ফোনেটিক ও ৮টি ফিক্সড বাংলা লেআউট। জাতীয় ও প্রভাতের মত জনপ্রিয় লেআউটগুলোর সাথে ইনস্ক্রিপ্ট, ইনস্ক্রিপ্ট ক্লাসিক, অক্ষর ও বাংলা লেআউটগুলো এখানে পাওয়া যাবে। পাশাপাশি বর্ণ ও বর্ণ ইজি দুটো লেআউট রয়েছে- বর্ণ ইজি লেআউটে বাংলা বর্ণগুলো মূলত ধারাবাহিকভাবে আছে এবং বর্ণ লেআউটটি কিছুটা জাতীয়-র কাছাকাছি। এছাড়া ভয়েস টাইপিং সমর্থনও থাকছে। সব মিলিয়ে বাংলা লেআউটের দিক থেকে বর্ণ কিবোর্ড যেকোন অ্যান্ড্রয়েড কিবোর্ডের মধ্যে সর্বোচ্চ ফ্লেক্সিবিলিটি দিচ্ছে।

ইন্টারফেসের কথা বললে বর্ণ কিবোর্ড সুন্দর, ক্লিন ও কাস্টমাইজেবল। প্রি-ইনক্লুডেড থিমের একটি সমৃদ্ধ কালেকশন আছে, সাথে কোন ইমেজকে কাস্টম থিম হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। পাশাপাশি প্রতিটি থিমের সাথে সাথে কী-বর্ডার থাকবে কিনা অথবা কেমন দেখাবে এরকম কাস্টমাইজের সুবিধা আছে।

Width ও Height কাস্টমাইজেশনের পাশাপাশি বটম প্যাডিং, অর্থাৎ নিচ থেকে কতটা ওপরে থাকবে তা নির্ধারণের অপশন থাকাতে হাতের জন্য সুবিধাজনক পজিশনে সেট করে নেয়া যায়। সেপারেট নাম্বার রো ও এরং এরাবিক লেআউটে হরকত রো এনাবল বা ডিজেবল করা যায়।

ভালো লাগা কয়েকটি দিক বলি। রিদ্মিক কিবোর্ডে ইংরেজি লেআউটে X, C, V বাটনগুলো লং প্রেস করে কাট, কপি ও পেস্ট করা যায়। তবে বর্ণ কিবোর্ডে কাট, কপি, পেস্ট অপশনগুলো বাটনগুলোর সেকেন্ডারী কী হিসেবে প্রদর্শিত হয়, পাশাপাশি একইভাবে Z-এ সিলেক্ট অল অপশন আছে। সবচেয়ে ভালো বিষয় হলো এটা বাংলা লেআউটগুলোতেও ইমপ্লিমেন্ট করা হয়েছে।

বর্ণের ইউজফুল জেসচারগুলো নিয়ে না বললেই না। স্পেসবার ব্যবহার করে ন্যাভিগেশন ও সিলেকশনে জন্য Gesture সেটিংস থেকে Layout switching style > Change Cursor Position and Change Layout(on Fast Swipe) অপশনটি সিলেক্ট করে নিতে হবে। এরপর স্পেসবারে দ্রুত সয়াইপ করলে লেআউট পরিবর্তন হবে এবং সাধারণ গতিতে মুভ করে কার্সর ন্যাভিগেট, ট্যাপ করে ধরে রেখে স্পেস কী থেকে ওপরে আঙুল নিয়ে মুভ করে সিলেক্ট করা যাবে।

সেইসাথে ভলিউম কী জেসচার হিসেবে কার্সর পজিশন পরিবর্তন বা লেআউট সুইচিং সেট করা যায়। ব্যাকস্পেস বাটন ব্যবহারের সময় লেফটে স্লাইড করে টেক্সট সিলেক্ট করে একসাথে ডিলিট করা যায়। ব্যাকস্পেস বাটনে ফাস্ট ডিলিট আরেকটি জেসচার আছে।

যেমনটা বলছিলাম, বর্ণ ফ্লেক্সিবিলিটি ও কাস্টমাইজেশনের দিক থেকে অনেক অপশন প্রদান করে। সিস্টেম থিম ছাড়াও আরো তিনটি ফন্ট ব্যবহারের অপশন আছে বর্ণ কিবোর্ডে- এর মধ্যে Bornomala ফন্টটি আমার পছন্দ। এখানে ক্লিপবোর্ড ফিচার আছে এবং ক্লিপবোর্ড ব্যাকআপ রাখা ও রিস্টোর করার অপশন দেয়া হয়েছে।

একটা গুরুত্বপূর্ণ টপিক আমি প্রায় স্কিপ করছি, তা হলো ফোনেটিক লেআউট এক্সপ্রেরিয়েন্স। আমি আসলে ফোনেটিক ব্যবহারে অভ্যস্থ না, যেকারণে এটার এক্সপ্রেরিয়েন্সকে কম্পেয়ার করতে পারছি না। বর্ণে সংযুক্ত ফোনেটিক লেআউটটি ‘বর্ণ ফোনেটিক’ নামে আছে, এবং এটা অভ্র বা রিদ্মিকের ফোনেটিকের কাছাকাছি হলেও চন্দ্রবিন্দু লেখাসহ টুকটাক পার্থক্য আছে।

বর্ণে স্মার্ট লার্নিং ফিচার আছে, ব্যবহারের সাথে সে অনুযায়ী সাজেশন ইম্প্রুভ হবে। রয়েছে পার্সোনাল ডিকশোনারি ফিচার। AI-এনাবল্ড স্মার্ট ফোনেটিক সাজেশন ও স্মার্ট কারেকশন ফিচারসহ সাজেশনকে আরো পার্সোনালাইজ করে নেয়ার অপশনস থাকছে- এবং থাকছে সাজেশন ব্যাকআপ রাখা বা রিস্টোর করার সুবিধা। তবে সাজেশনের প্রসঙ্গে, বর্ণের সাজেশন এনিমেশন ডিস্ট্রাক্টিং মনে হয় আমার, এই এনিমেশন বন্ধ করতে চাইলে Suggestions & Text Correction সেটিংস থেকে Smooth Suggestion Effect আনচেক করে নিতে হবে।

বর্ণ কিবোর্ড ব্যবহার করে আমি খুবই সন্তোষজনক এক্সপ্রেরিয়েন্স পেয়েছি। ডেভেলোপার কোডপত্রকে কৃতজ্ঞতা জানাতে হয় বিনামূল্যে এই অসাধারণ সফটওয়্যারটির জন্য। যারা বিশেষ করে ফিক্সড লেআউটে বাংলা লিখে থাকেন, তারা বর্ণ একবার ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আশা করছি ভালো লাগবে।

সেই সাথে আমি আরেকটু যুক্ত করে দিতে চাই, বর্ণের ডেভেলোপমেন্টের পেছনে বড় কোন কোম্পানি নেই, এমনকি সম্ভবত এটা এককভাবে Jayed Ahsan Saad ভাইয়ের ডেভেলোপ করা। একইসাথে এটা অনেক দীর্ঘ সময়ও এখনও পার করেনি। তাই ডিভাইস কম্প্যাটিবিলিটি বা কিছু ইস্যু হয়ত এখনো থাকতে পারে। বর্ণ অ্যাপের মধ্যে সাপোর্ট সেকশন থেকে ডোনেট করতে পারেন এবং ফিডব্যাক সেকশনে আপনার ইউজার ফিডব্যাক জানাতে পারেন- যা হয়ত এর ডেভেলোপমেন্টকে আরো ত্বরান্বিত করতে পারবে।

অ্যান্ড্রয়েডের জন্য বর্ণ রেগুলার ভার্সনের সাথে লিমিটেড বর্ণ লাইট রয়েছে। পরবর্তীতে একটি ওপেন সোর্স ভার্সন আনার ও তার ওপর ভিত্তি করে বর্ণ এক্সটেন্ডেড নিয়ে আসার পরিকল্পনা আছে।

বর্ণ ওয়েবসাইট
বর্ণ টেলিগ্রাম গ্রুপ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *