নিয়নবাতি টেক কনটেস্ট শুরু হচ্ছে ২১ জুলাই থেকে, থাকছে অনেক আকর্ষণ

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম। আসসালামু আলাইকুম। নিয়নবাতিতে বেশ কিছু কনটেস্ট আমরা ইতোপূর্বে আয়োজন করেছি, এবং তার ধারাবাহিকতায় ইন শা আল্লাহ ২১ জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে আমাদের নতুন কনটেস্ট ‘নিয়নবাতি টেক কনটেস্ট‘। প্রতিবারই আমরা চেষ্টা করি আমাদের কনটেস্টগুলো আকর্ষণীয় করতে এবং এবারের কনটেস্টকেও চেষ্টা করেছি পূর্বের কনটেস্টগুলো থেকে আরো সুন্দর করে সাজাতে।

এবারের কনটেস্টটিও সাম্প্রতিক পূর্ববর্তী কনটেস্টগুলোর মত নিয়নবাতি পয়েন্টস পদ্ধতিতে আয়োজন হবে। তবে বিজয়ী নির্ধারণ প্রক্রিয়াতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। র‌্যাঙ্কিংয়ের ভিত্তিতে এবার বিজয়ী নির্ধারণ হবে না, বরং অর্জিত পয়েন্টসের ভিত্তিতে পুরস্কার থাকবে। পয়েন্টস পদ্ধতি নিয়ে আসার একটি উদ্দেশ্য ছিলো খুব অল্প পার্থক্যের কারণে কেউ পুরস্কার অর্জন করবে, কেউ কিছুই পাবে না- এরকমটা যেন না হয়। নিছক অন্যকে ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতা রেখে হোক না এবার নিজের দিকে মন দেয়ার প্রচেষ্টা!

নিয়নবাতি টেক কনটেস্টে থাকছে ৩টি অংশ:

» টেক আর্টিকেল

» ইনোভেটিভ আইডিয়া জেনারেশন

» টেক কুইজ

এছাড়া শেয়ার ও ইনভাইটেশনসহ আরো কিছু উপায় থাকবে পয়েন্টস অর্জনের। আমাদের আগের কনটেস্টগুলোর দুটি আমাদের টেলিগ্রাম গ্রুপে এবং অন্যগুলো ফেসবুক গ্রুপে আয়োজিত হয়েছিলো। তবে এবার একসাথে ফেসবুক গ্রুপ ও টেলিগ্রাম গ্রুপে আয়োজিত হবে।

কনটেস্টের বিস্তারিত

কনটেস্টের সময়কাল: ২১ জুলাই ২০২২ থেকে ৩০ জুলাই ২০২২
কনটেস্টের স্থান: নিয়নবাতি টেলিগ্রাম গ্রুপনিয়নবাতি ফেসবুক গ্রুপ
বিচারক প্যানেল: বাকিবিল্লাহ সাকিব, মোহাম্মদ ইমন

টেক আর্টিকেল

টেক আর্টিকেল কনটেস্টে নির্ধারিত বিষয়ের ওপর আর্টিকেল লিখতে হবে। লেখাটি অবশ্যই নিজেকে লিখতে হবে এবং নিজের চিন্তা ও মতামত তুলে ধরতে হবে।

নির্ধারিত বিষয়সমূহ

১. স্মার্টফোন ও কম্পিউটারের প্রোডাক্টিভ ব্যবহার
আউটলাইন: স্মার্টফোন ও কম্পিউটারের মত ডিভাইসগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমাদের সময় অপচয়ের কারণ হচ্ছে। তবে ডিভাইসগুলোর যথাযথ ব্যবহার খুলে দিতে পারে অনেক সম্ভাবনার দুয়ার। স্মার্টফোন ও কম্পিউটারের ব্যবহার কেমন হলে তা আরো প্রোডাক্টিভ করতে পারে জীবনকে?
২. কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অগ্রগতি – আশা ও আশঙ্কা
আউটলাইন: কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বর্তমানে প্রযুক্তি জগতের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়গুলোর একটি। ক্রমশ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উন্নতি যখন বহু ক্ষেত্রে আশার আলো দেখাচ্ছে- তার সাথেই যেন রয়েছে কিছু আশঙ্কার ঘন কালো মেঘ। ঠিক কতটুকুতে গিয়ে শেষ হওয়া উচিৎ যন্ত্রের বুদ্ধিমত্তা?
৩. প্রযুক্তি এবং আত্মকেন্দ্রিকতা: সমাধান কি?
আউটলাইন: প্রযুক্তি যখন দূর-দূরান্তের সবকিছু হাতের মুঠোয় এনে দিচ্ছে, তখনই কেমন যেন হাতের মুঠোয় থাকা যন্ত্রটার দিকেই মনোযোগ রেখে আশেপাশের মানুষজন থেকে আমরা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছি ক্রমাগত। প্রযুক্তি কি আমাদের অসামাজিক করছে? করণীয় কী তবে?

নিয়মাবলী

১. নির্ধারিত প্রতিটি বিষয়ে ১টি করে সর্বোচ্চ ৩টি লেখা প্রকাশ করা যাবে প্রতিযোগিতা চলাকালীন সময়ে। প্রতিটি আর্টিকেলের জন্য বিচারক প্যানেলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ পয়েন্ট থেকে ২৫ পয়েন্ট পর্যন্ত যাওয়া যাবে।

২. টেক আর্টিকেলের জন্য লেখা ফেসবুক গ্রুপ অথবা টেলিগ্রাম গ্রুপ যেকোন একটি অথবা উভয়টিতে প্রকাশ করা যাবে। উভয়টিতে প্রকাশ করলে ৫ পয়েন্ট অতিরিক্ত থাকছে।

৩. কনটেস্টের জন্য আর্টিকেলগুলো চিহ্নিত লেখার শুরুতে #NeonTechArticle হ্যাশট্যাগ যুক্ত করতে হবে। এরপর বিষয়ের ক্রমিক নং-সহ শিরোনাম লিখতে হবে। বিষয় ঠিক রেখে শিরোনাম নিজের মত দেয়া যাবে।

৪. অনলাইন বা অফলাইন রিসোর্স থেকে তথ্য সহায়তা ও প্রয়োজনীয় উদ্ধৃতি নেয়া যাবে- যেক্ষেত্রে যথাযথ রেফারেন্স উল্লেখ করে দেয়ার পরামর্শ থাকবে। তবে এর বাইরে কোনভাবেই অন্যের লেখা আংশিক বা সম্পূর্ণ কপি করা হয়েছে দেখা গেলে তা আর্টিকেলটি পয়েন্টসের জন্য বিবেচিত হবে না।

৫. আর্টিকেলের সাথে ফিচার ছবি যুক্ত করতে পারেন, আর্টিকেলটি সুন্দরভাবে উপস্থাপন, সঠিক বানান প্রভৃতি অধিক পয়েন্ট অর্জনে সহায়ক হতে পারে। কোন শব্দসীমা নির্ধারণ করে দেয়া হচ্ছে না।

৬. নিয়নবাতি গ্রুপের সাধারণ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে।

ইনোভেটিভ আইডিয়া জেনারেশন

সুন্দর কিছুর শুরু হয় সুন্দর কোন চিন্তা থেকে। আমাদের যিনি সৃষ্টি করেছেন, তিনি আমাদের অত্যন্ত শক্তিশালী চিন্তাশক্তি দিয়েছেন, যার সঠিক ব্যবহার থেকে হতে পারে অসাধারণ কিছু। ইনোভেটিভ আইডিয়া জেনারেশন কনটেস্টটির উদ্দেশ্য হলো আমাদের চিন্তাশক্তিকে নতুন দারুণ কিছু চিন্তার খোরাক দেয়া।

চিন্তা করতে হবে নতুন ইনোভেটিভ কোন প্রযুক্তির আইডিয়া নিয়ে। যেটা হয়ত জীবনকে আরেকটু সহজ করতে পারে, অথবা অভাবীদের অভাব কিছুটা দূর করতে পারে, কিংবা বৈষম্যগুলো কমিয়ে আনতে পারে, বা সমাজটাকে করতে পারে আরেকটু সুন্দর অথবা যেকোনভাবে সূচনা করতে পারে ভালো কিছু। তবে সেটা হতে হবে প্রাক্টিকাল ও বাস্তবায়নযোগ্য।

ইনোভেটিভ আইডিয়া জেনারেশনের জন্য থাকছে ১ পয়েন্ট থেকে সর্বোচ্চ ৫০ পয়েন্ট। আইডিয়াটা কতটা কার্যকর, কতটা ডিটেইলড, কতটা বাস্তবায়নযোগ্য এই বিষয়গুলো বিবেচনা করে বিচারক প্যানেল পয়েন্ট প্রদান করবে।

এই কনটেস্ট সম্পৃক্ত পোস্টগুলোতে #NeonIdea হ্যাশট্যাগটি যুক্ত করতে হবে। ফেসবুক গ্রুপ অথবা টেলিগ্রাম গ্রুপ যেকোন একটি অথবা উভয়টিতে প্রকাশ করা যাবে। উভয়টিতে প্রকাশ করলে ৫ পয়েন্ট অতিরিক্ত থাকছে।

টেক কুইজ

একদিন পরপর- ২২, ২৪, ২৬, ২৮ ও ৩০ তারিখ এই ৫ দিন প্রতিদিন রাত ৮ টায় ৫টি করে মোট ২৫টি কুইজ হবে নিয়নবাতি টেলিগ্রাম গ্রুপে। কুইজগুলো নিয়নবাতিতে প্রকাশিত কোন আর্টিকেল থেকে হবে, যেটা আগে জানিয়ে দেয়া হবে। কুইজগুলো কুইজবটের সাহায্যে আয়োজিত হবে, প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য ৩০ সেকেন্ড সময় থাকবে। তাই অংশ নিতে হলে অবশ্যই নির্দিষ্ট দিনগুলোতে সময়ের মধ্যে টেলিগ্রাম গ্রুপে একটিভ থাকতে হবে।

অংশগ্রহণ করতে করণীয়

১. প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার জন্য নিয়নবাতি ফেসবুক পেজে অথবা টেলিগ্রামে এই আইডিতে মেসেজ দিন। পয়েন্টের হিসেব রাখতে এবং যোগাযোগের জন্য এটি প্রয়োজন হবে।
২. নিয়নবাতি ফেসবুক গ্রুপ এবং নিয়নবাতি টেলিগ্রাম গ্রুপ-এর অন্তত একটিতে যুক্ত হোন। তবে উভয়টিতে যুক্ত থাকলে অধিক পয়েন্ট অর্জন করার সুযোগ থাকবে।

পয়েন্টস অর্জনের পদ্ধতিসমূহ

» টেক আর্টিকেল, ইনোভেটিভ আইডিয়া জেনারেশন ও টেক কুইজ থেকে ওপরের উল্লেখ অনুযায়ী পয়েন্টস অর্জন করা যাবে।
» এই লেখাটি যথাযথভাবে পড়ে ফেসবুক প্রোফাইলে পাবলিক অথবা ফ্রেন্ডস অফ ফ্রেন্ডস প্রাইভেসিতে অথবা ১০-এর অধিক সাবস্ক্রাইবারসহ পার্সোনাল একটিভ টেলিগ্রাম পাবলিক চ্যানেল থাকলে সেখানে শেয়ার করে আমাদের অবহিত করলে ১০ পয়েন্ট পাওয়া যাবে। শেয়ার করার পর অন্তত ২৪ ঘন্টার পূর্বে পোস্টটি মুছে ফেলা যাবে না।
» ফেসবুক গ্রুপে ১৫ জন বা অধিকসংখ্যক বন্ধুকে ইনভাইট করে আমাদের অবহিত করলে ১০ পয়েন্ট পাওয়া যাবে।
» টেলিগ্রাম গ্রুপে ১০ জন বা অধিকসংখ্যক বন্ধুকে যুক্ত করে আমাদের অবহিত করলে ১০ পয়েন্ট পাওয়া যাবে।
ফেসবুক গ্রুপ ও টেলিগ্রাম গ্রুপ উভয়ক্ষেত্রে ফেক বা ইনএক্টিভ আইডি ইনভাইট না করতে অনুরোধ করা যাচ্ছে। এছাড়া ইনভাইটেশনে বিরক্ত হতে পারেন, এমন মনে হলে ইনভাইট না করাটাই ভালো। ইনভাইটেশনের স্ক্রিনশট বা ভিডিও সংরক্ষণের প্রয়োজন নেই, আমরা বিশ্বাস রাখছি এখানে কেউ প্রতারণা করবেন না। ২১ তারিখের পূর্বে, অর্থাৎ ১৬-২০ তারিখের মধ্যে ইনভাইট অথবা শেয়ার করলে সেটিও গণ্য করা হবে।

পুরস্কারসমূহ

প্রতিযোগিতা চলাকালীন অর্জিত পয়েন্টের জন্য পুরস্কার হিসেবে থাকছে-

১২৫ পয়েন্ট – 32 GB Class 10/ U1 মেমোরি কার্ড

১০০ পয়েন্ট – রুবিক্স স্পিড কিউব (3×3×3) + নোটবুক

৮০ পয়েন্ট – রুবিক্স স্পিড কিউব (3×3×3)

৫০ পয়েন্ট – নোটবুক

পুরস্কার না পেলে অথবা পুরস্কার অর্জিত পয়েন্টের অতিরিক্ত আরো ২০-এর অধিক পয়েন্ট থাকলে তার জন্য বিকাশ অথবা রিচার্জ থাকছে, এক্ষেত্রে যাদের পূর্বের প্রতিযোগিতাগুলোতে অর্জিত নিয়নবাতি পয়েন্ট আছে- তাও বিবেচিত হবে।

বিশেষ কারণবশত কোন নিয়মে ব্যতিক্রম বা পরিবর্তন হতে পারে। প্রতিযোগীদের ক্ষেত্রে বিশেষ ক্ষেত্রে নিয়নবাতি কতৃপক্ষ বিবেচনার অধিকার রাখবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: